সোনালী নীড়

0
264

জীবনের স্রোতোধারার অনিবার্য সঙ্গী হলো মানবজাতি ৷ নরএবং নারীমানবজাতির এই জীবনধারাকে প্রবাহমান গতি দিয়েছে সেই সৃষ্টির আদি মানব আদমের যুগ থেকে ৷ বর্তমান বিশ্বের ৬১০ কোটি মানুষ যুগ-যুগান্তের ধারাবাহিক উত্তরাধিকার এখন ৷ মানুষ সম্পর্কে প্রসিদ্ধ একটি বক্তব্য প্রায় সবারই জানা, তাহলো-মানুষ হলো বিচার বুদ্ধি সম্পন্ন প্রাণী৷ সত্যিই এই বিচারবোধই মানুষকে অন্যান্য প্রাণী থেকে আলাদা করে তুলেছে ৷ সেজন্যে মানুষ অন্যান্য প্রাণীর মত জীবন যাপন না করে আল্লাহ প্রদত্ত বুদ্ধিমত্তা দিয়ে গড়ে তুলেছে একটি সুশৃঙ্খল সামাজিক ও পারিবারিক জীবন ৷ যুগে যুগে আল্লাহ প্রেরিত রাসূলগণই এই পরিবার গঠনের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন ৷ সুশৃঙ্খল এই পারিবারিক কাঠামো থেকেই মানুষ পেয়েছে সভ্যতার আলো ৷ পরিবার কাঠামোর সাথে সভ্যতা যেন নিত্যসঙ্গী ৷ যেখানে পরিবার কাঠামো নেই, সেখানে সভ্যতা বলতে যা বোঝায়, তার সাথে অন্যান্য প্রাণীকূলের জীবনযাপন পদ্ধতির খুব বেশী পার্থক্য নেই ৷ নারী এবং পুরুষ উভয়ের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় গড়ে ওঠে পরিবার ৷ এই সম্মিলিতশব্দের মধ্যেই নিহিত রয়েছে নারী-পুরুষের পারস্পরিক অবদান এবং অধিকারের সূক্ষ্ম বিষয় ৷

 

 প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকেই নারী-পুরুষের অধিকার এবং পারস্পরিক সম্পর্কের ব্যাপারে বিভিন্ন ধর্ম ও আদর্শগত মতবাদ বিচিত্র দৃষ্টিভঙ্গী প্রকাশ করেছে ৷ সেসব দৃষ্টিভঙ্গী অনুযায়ী একমাত্র ইসলাম ব্যতীত অন্য সকল ধর্ম ও মতবাদই নারীকে কখনো ভোগ্যপণ্যে কিংবা কখনো পুরুষ দেবতার সেবাদাসীতে পরিণত করেছে ৷ সভ্যতার এই স্বর্ণযুগেও নারী-পুরুষের পারস্পরিক সম্পর্ক ও অধিকার নিয়ে এখনো চলছে বিচিত্র কৌণিক মতামত ৷
পশ্চিমা সমাজে পরিবার কাঠামো ভেঙ্গে পড়ায় সেখানে বিবাহ-বহির্ভূত লিভিং টুগেদার বা নারী-পুরুষের একত্রবাস প্রথা চালু রয়েছে ৷ এছাড়া বিয়ের প্রচলন সেখানে যতটুকু অবশিষ্ট রয়েছে, তাতে স্বামী-স্ত্রীর পারস্পরিক অধিকার প্রশ্নে মতবিরোধের জের ধরে ডিভোর্সের মাত্রাই ব্যাপক ৷ যে সমাজে লিভ-টুগেদারের জন্যে বিয়েরই প্রয়োজন নেই, সে সমাজে ডিভোর্স বা তালাক প্রদানের মাত্রা যে কতো মামুলি ও ভয়াবহ, তা খুব সহজেই অনুমান করা যায় ৷ জ্ঞান-বিজ্ঞানে বা প্রযুক্তিগত উৎকর্ষের মানদন্ডে পশ্চিমা জগত আধুনিক সভ্যতার দাবীদার হলেও ক্ষয়িষ্ণু পরিবার কাঠামোর ফলে পাশ্চাত্য সভ্যতা বিশ্বব্যাপী অকল্যাণই বয়ে এনেছে ৷ তাদের ঐ কু-সংস্কৃতির ব্যাপক প্রভাবে মুসলিম জাতির মধ্যেও তা এখন সংক্রমিত হচ্ছে ৷ এরফলে পারিবারিক বিশৃঙ্খলা ব্যাপক বেড়ে গেছে ৷ অথচ পরিবারের প্রধান যে দুটি স্তম্ভ অর্থাৎ বাবা-মা বা স্বামী-স্ত্রী-তাদের মধ্যে যদি পারস্পরিক কর্তব্যবোধ স্পষ্টভাবে জাগ্রত থাকতো, তাহলে এই সমস্যা হয়তো দেখাই দিত না ৷ বহু শিক্ষিত পরিবারেও যথার্থ ইসলামী শিক্ষার অভাবে এ ধরণের সমস্যা বিরাজ করছে ৷ শিক্ষিত এইসব পরিবার তাদের পারস্পরিক অধিকার সম্পর্কে চিন্তা করে থাকে পাশ্চাত্যের মানদন্ডে, যেখানে নারী-পুরুষ স্বাধীনভাবে যাপন করছে পশুর মত জীবন ৷ তাই মুসলিম দম্পতিদের উচিৎ তাদের নিজস্ব ধর্মাদর্শ সম্পর্কে সচেতন হয়ে পারস্পরিক কর্তব্যবোধে উজ্জীবিত হওয়া এবং যথাযথভাবে তা মেনে চলা ৷ তাহলেই দেখা যাবে সংসার হয়ে উঠেছে শান্তির সোনালী নীড়।
একথা অস্বীকার করার কোন উপায় নেই যে, স্বামী-স্ত্রীর সুদৃঢ় বন্ধন এবং পারস্পরিক অধিকার প্রতিষ্ঠায় ইসলামই সর্বশ্রেষ্ঠ আদর্শ স্থাপন করেছে ৷ ইসলাম পূর্বকালে নারীকে মানুষই মনে করা হতো না ৷ গ্রীকরা তাদেরকে মনে করতো শয়তানের চর ৷ জৈবিক চাহিদা মেটানোর প্রয়োজনেই তাদের ব্যবহার করা হতো ৷ রোমানদের অবস্থাও ছিল তাই ৷ সেখানে কন্যাসন্তানকে বিক্রি করা হতো ৷ জাহেলিয়াতের যুগে আরবে কন্যাসন্তানকে জ্যান্ত পুঁতে ফেলার ইতিহাস সর্বজনবিদিত ৷ পারস্য সভ্যতায়ও কন্যাসন্তানকে ভীষণরকম অকল্যাণকর বলে মনে করা হতো ৷ চীনের অবস্থা এতটাই ভয়াবহ ছিল যে, কোন পরিবারে কন্যাসন্তানের জন্ম হলে পাড়া-প্রতিবেশী, আত্মীয়-স্বজনরা দুঃখ ও সহানুভূতি জানাতো ৷ অর্থাৎ নারী ছিল একটা ভোগ্যপণ্য ৷ তাদের ব্যক্তিগত কোন মানবিক সত্ত্বাই স্বীকার হতো না ৷ আর হিন্দু ধর্মের অনুসারীরা মৃত ব্যক্তির সাথে তার স্ত্রীকেও জীবন্ত পুড়ে মারতো ৷ এরকম করুণ একটা ঘটনাকে তারা স্বামীর প্রতি স্ত্রীর ভালোবাসা ও ত্যাগের নিদর্শন বলে মনে করতো ৷ কী আশ্চর্য, বিধবাকে সম্পত্তির অধিকার না দিয়ে, দিয়েছিল চিতার আগুনে জীবন্ত পোড়াবার নির্দেশ ! এভাবে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বিচিত্র উপায়ে নারীদের সত্ত্বাকে লাঞ্চিত করা হয়েছিল ৷ ইসলাম ধর্মের আবির্ভাবের ফলে নারী পেল তার মৌলিক মানবিক অধিকার । নবী করিম (সাঃ) ঘোষণা করেন, হে মুসলমানেরা! তোমাদের উপর তোমাদের স্ত্রীদের যেমন অধিকার রয়েছে, তেমনি তাদের উপরও তোমাদের অধিকার রয়েছে ৷” আল্লাহ রাববুল আলামীন বললেন, নারীরা তোমাদের পোষাক এবং পুরুষরাও নারীদের পোষাকস্বরূপ ৷ যুগান্তকারী এইসব ঘোষণার মাধ্যমে নারী ফিরে পেল তাদের অধিকার, ফিরে পেল মানুষ হিসাবে তাদের অস্তিত্ব, স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে তারাও হয়ে উঠলো সভ্যতা সৃষ্টির প্রশংসিত স্রষ্টাদের গর্বিত অংশীদার ৷ কবি নজরুলের ভাষায়-

পৃথিবীর যা কিছু সুন্দর, চির কল্যাণকর
অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর

ইসলাম নারী এবং পুরুষকে তাদের পারস্পরিক অধিকার সম্পর্কে সচেতন করার পাশাপাশি পরিবারের শৃঙ্খলা বিধানের জন্যে সুস্পষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন করে একটা আদর্শ সমাজ বিনির্মানকে সুনিশ্চিত করেছে ৷ পরিবারের মূল হলো স্বামী-স্ত্রী বা বাবা-মা৷ স্বামী-স্ত্রীর জীবনে শৃঙ্খলা ও নৈতিকতার অনুশীলন যদি না থাকে, তাহলে তাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জীবনেও তা আশা করা যায় না ৷ আর স্বামী-স্ত্রী এবং তাদের বংশধরের সামষ্টিক রূপই হলো সমাজ ৷ আর সমাজ কাঠামোর বৃহত্তর সংগঠনই রাষ্ট্র ৷ তাই বলা যায় একটা রাষ্ট্রের শৃঙ্খলা ও আদর্শের মূল ভিত্তিই হলো পরিবার ৷ ইসলাম তাই পরিবার তথা বাবা-মা এবং তাদের সন্তানদের মধ্যকার পারস্পরিক শৃঙ্খলা ও নৈতিকতা বিধানে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে একের প্রতি অপরের দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন সম্পর্কে যথাযথ রূপরেখা দিয়ে দিয়েছে ৷ কারণ স্বামী-স্ত্রীর সুদৃঢ় বন্ধনই উত্তর প্রজন্মের নৈতিক শৃঙ্খলা বিধানের একমাত্র উপায় ৷ সমাজের প্রতি একটু সচেতন দৃষ্টি দিলে লক্ষ্য করা যাবে, যে পরিবারে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দাম্পত্য কলহ রয়েছে, সে পরিবারে শান্তিতো নেই-ই বরং পরবর্তী প্রজন্মও বিশৃঙখল জীবন যাপনে অভ্যস্থ হয়ে পড়ে ৷ সামাজিক অনাচার, মাদকাশক্তিসহ মানবিক মূল্যবোধ বর্জিত কর্মকান্ডের মূলে রয়েছে এই পারিবারিক বিশৃঙ্খলা ৷ অথচ পরিবারে এ ধরনের বিশৃঙ্খলা সাধারণত খুবই ছোটখাট ঘটনাকে কেন্দ্র করেই দানা বেঁধে ওঠে ৷ ঘটনাগুলোর জন্য পারস্পরিক অহমবোধ, অশ্রদ্ধা, সম্মানহীনতা এবং নিজ নিজ কর্তব্যের ব্যাপারে ইসলামের বেধে দেয়া মানদন্ড সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারনা না থাকাই দায়ী ৷ আমাদের সমাজে এখনও অজ্ঞানতাবশত স্বামীদের অনেকেই মনে করেন যে, স্ত্রী হলেন তাদের দাসীর মতো ৷ স্ত্রীর কাজ হলো স্বামীর সকল আদেশ মেনে চলা ৷ খুব স্বাভাবিকভাবেই একজন স্ত্রী এ ধরনের স্বৈরাচারী স্বামীর কর্তৃত্ব মেনে নেয় না ৷ সেজন্যেই শুরু হয় দ্বন্দ্বের সূত্রপাত ৷ স্বামীরা তাদের স্ত্রীদের ওপর যেরকম অধিকার চর্চা করার চেষ্টা চালায়, স্ত্রীদেরও যে স্বামীর ওপর সেরকম আধিকার চর্চার সুযোগ রয়েছে এ কথাটা স্বামীরা ভুলে যান এবং পুরুষতান্ত্রীক স্বৈরাচারী শাসন কায়েম করেন ৷ সেজন্যে স্ত্রীর ওপর স্বামীর কর্তব্য এবং স্বামীর ওপর স্ত্রীর কর্তব্য সংক্রান্ত ইসলামী নীতিমালা নিয়ে আমরা ধারাবাহিকভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করব ৷ প্রথমেই আমরা স্ত্রীর ওপর স্বামীর কী কী কর্তব্য রয়েছে সেগুলো তুলে ধরবো ৷ একজন পুরুষ ইসলামের এই নীতিমালার মানদন্ডে নিজেকে বিচার করবেন এবং পারিবারিক শৃঙ্খলা ও দাম্পত্য জীবনে সুখ-শান্তি প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করবেন এটাই প্রত্যাশা ৷

প্রতিটি পরিবারকে সুখ-শান্তির সোনালী নীড়ে পরিণত করার সুমহান লক্ষ্য অর্জন করার জন্যে যেসব দিক-নির্দেশনা আল্লাহ রাববুল আলামীন এবং তাঁর প্রিয় রাসূল দিয়েছেন, সেগুলোর প্রতি যথার্থ মনোযোগী হওয়া একান্ত জরুরী ৷ পরিবারের সূচনা হয় বিয়ের মধ্য দিয়ে ৷ বিয়ের মাধ্যমেই নর এবং নারীর দুটি জীবন একটি মাত্র স্রোতে প্রবাহিত ৷ বাংলায় একটি প্রবাদ আছে,তেলে-জলে কখনো মেশে না ৷ অর্থাৎ মিলন ঘটে না ৷ তাই দেখা যায় বিপর্যয় ৷ স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কও যদি তেল আর জলের মতো হয়, তাহলে পারিবারিক বিপর্যয় দেখা দেবে-এটাই স্বাভাবিক ৷ ফলে প্রশ্ন দাঁড়ায় নর-নারী বাছাই কীভাবে করতে হবে ? অধিকার বা কর্তব্য সম্পর্কে কথা বলার আগে আমরা বরং এ প্রশ্নটির সমাধান করার চেষ্টা করি ৷
বিয়ের ক্ষেত্রে কনের চারটি গুনের কথা হাদীসে উল্লেখ করা হয়েছে ৷ এগুলো হলো- ঐশ্বর্য, আভিজাত্য, সৌন্দর্য ও দ্বীনদারিত্ব ৷ ইমাম রেজা (আঃ) বলেছেন, একজন পুরুষের জন্যে সবচেয়ে বড়ো সম্পদ হলো ঈমানদার নারী পাওয়া, যে নারী সেই পুরুষটিকে দেখামাত্রই সুখী হয়ে উঠবে এবং তার অবর্তমানে তার সম্পদ ও সম্মান রক্ষা করবে ৷” নারীর যে চারটি গুনের কথা বলা হয়েছে তার মধ্যে দ্বীনদারিত্বই হলো প্রধান বিষয় ৷ কারণ দ্বীনদার রমনীর কাছে অন্য তিনটি গুনের মূল্য অপ্রধান ৷ কেননা দ্বীনদার নারী ঐশ্বর্য, আভিজাত্য কিংবা সৌন্দর্যের বড়াই করে না ৷ ধন-সম্পদ এবং বংশগত সাম্য না থাকলে খুবই সমস্যা দেখা দেয় ৷ স্বামী বেশী ধনী হলে স্ত্রীকে ছোটলোক বলে খোঁটা দেয়ার আশঙ্কা থাকে ৷ পক্ষান্তরে স্ত্রীর বাবা-মা তুলনামূলকভাবে ধনী হলে স্বামীকে ছোটলোক বা বিভিন্নভাবে খোঁটা দেয়ার আশঙ্কা থাকে ৷ বিশেষ করে জীবন-যাপন প্রণালীতে তারতম্যের সম্ভাবনা থাকে ৷ আর এসব থেকেই পারিবারিক সমস্যা সাধারণত দেখা দেয় ৷ আরেকটি বিষয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ, তাহলো এই চারটি বিষয়ে সমতা থাকলেও বর-কনের পারস্পরিক পছন্দের ব্যাপারে গুরুত্ব দিতে হবে; কোনভাবেই জোর-জবরদস্তি করা যাবে না ৷ জোর করে বিয়ে করা বা দেয়া হলে পরিণতি কখনোই ইতিবাচক হয় না ৷ এই মৌলিক বিষয়গুলো মনে রেখে বিয়ে করার পর স্বামী-স্ত্রীর যে দাম্পত্য জীবন গড়ে ওঠে, সেক্ষেত্রে স্ত্রীর প্রতি স্বামীর এবং স্বামীর প্রতি স্ত্রীর কর্তব্যগুলো আন্তরিকভাবে পালন করা সুখ-শান্তির অনিবার্য শর্ত ৷ আমরা প্রথমেই স্ত্রীর প্রতি স্বামীর কর্তব্যের দিকগুলো ইসলামী দৃষ্টিকোণ থেকে তুলে ধরার চেষ্টা করছি ।
একটি পরিবারের স্তম্ভ হলো দুটি ৷ নারী-পুরুষ তথা স্বামী ও স্ত্রী ৷ এ দুজনের মধ্যে যে কোন একজনকে পরিবারের অভিভাবকত্ব নিতে হয় ৷ অভিভাবক শূন্য পরিবার বিশৃঙখল ৷ পরিবার সংগঠনটির সাথে ঘরে-বাইরের বহু বিষয়ের সম্পর্ক থাকে ৷ তাছাড়া নারীর তুলনায় পুরুষ যেহেতু কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রাকৃতিকভাবেই শক্তিমান, তাই আল্লাহ রাববুল আলামীন পুরুষকেই স্ত্রী তথা পরিবারের অভিভাবক হিসাবে ঘোষণা করেছেন ৷ বলেছেন, ‘পুরুষরা হলো স্ত্রীদের অভিভাবক এবং ভরণপোষণকারী ৷অন্যদিকে রাসূলে খোদা (সাঃ)বলেছেন, ‘পুরুষ হলো পরিবারের প্রধান, আর যারা প্রধান তাদের কর্তব্য হলো নিজ নিজ অধীনস্থদের প্রতি দায়িত্বশীল হওয়া ৷
তো কোরআন এবং হাদীস অনুযায়ী পরিবারের অভিভাবকত্ব যেহেতু পুরুষ তথা স্বামীর ওপর ন্যস্ত হয়েছে, তাই স্বামী অর্থাৎ পরিবারের অভিভাবকের দায়িত্ব এবং কর্তব্যও অনেক বেশী ৷ পুরুষ কর্তাটিকে তাই হতে হয় পরিবারের প্রধান শৃঙ্খলা বিধায়ক ৷ যে পরিবারে এর ব্যতিক্রম লক্ষ্য করা যায়, সেখানেই বিপর্যয় নেমে আসে ৷ তবে এখানে যে বিষয়টি মনে রাখতে হবে তাহলো পরিবারের কর্তা বলে সে যেন অন্যান্যদেরকে তার প্রজা ভেবে না বসে বরং পারস্পরিক পরামর্শ, আন্তরিকতা ও দুরদর্শিতার সাথে শ্রদ্ধা-সম্মান ও স্নেহের ভিত্তিতে একটি সুন্দর, সুশৃঙ্খল পরিবেশ গড়ে তোলাই হবে তার দায়িত্ব ও কর্তব্য ৷ স্ত্রী যেহেতু পরিবার সংগঠনে স্বামীর প্রধান সহযোগী এবং পরিবারের অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা বিধানের প্রধান ব্যক্তি, সেজন্যে স্ত্রীর ওপর স্বামীর যথাযথ দায়িত্ব পালনই হলো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ৷ একথা সর্বজনবিদিত সত্য যে, দীর্ঘ পথ চলতে গেলে মাঝখানে ছোট-খাটো সমস্যা অর্থাৎ হোঁচট খাওয়ার একটা আশঙ্কা থেকে যেতেই পারে ৷ আর যেখানে ব্যক্তি এবং ব্যক্তিত্বের সহাবস্থান ঘটে এবং তা যদি স্বামী-স্ত্রীর মতো দুটি ব্যক্তিত্বের দীর্ঘ সংসার জীবনের পথ পাড়ি দেয়ার মতো ঘটনা হয়, তাহলে ছোট-খাটো যে কোন ধরণের সমস্যা দেখা দেয়াটা অসম্ভব কিছু নয় ৷ আর সমস্যা দেখা দিলে দোষ কার তা না খুঁজে বরং কীভাবে তার সমাধান করা যায়, তারই প্রচেষ্টা চালানো উচিৎ ৷ কারণ মানুষের প্রকৃতিগত মানবীয় দুর্বলতার কারণেই দোষ-ত্রুটি হয়ে থাকে ৷ ফলে দোষ-ত্রুটি খুঁজতে গেলে অযথা বিড়ম্বনাই বাড়বে ৷ সেক্ষেত্রে ধৈর্যধারণ করাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ ৷ সমস্যা সমাধানের পর দোষ যদি স্ত্রীরও হয়ে থাকে, তবু তাকে তিরস্কৃত করা যাবে না ৷ কারণ মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) বলেছেন, ‘কোন ঈমানদার পুরুষ যেন কোন ঈমানদার নারীকে ঘৃণা না করে ।স্ত্রীর তো দোষ থাকতেই পারে ৷ তাই বলে কি তার কোন গুণ নেই? যদি গুণ থেকেই থাকে, সেক্ষেত্রে গুণগুলোকে সামান্য তুলে ধরে দোষকে চেপে যাওয়াটাই হবে অভিভাবকসুলভ আচরণ ৷ আল্লাহ রাববুল আলামীন পবিত্র কোরআনে বলেছেন, ‘তোমরা স্ত্রীদের সাথে ভালো আচরণ কর ৷ তোমরা যদি তাদের অপছন্দ কর, তাহলে অসম্ভব নয় যে, আল্লাহ তাদের মধ্যে অনেক কিছুই ভালো ও কল্যাণ জমা করে রেখেছেন ৷স্ত্রীদের ব্যাপারে আল্লাহর নির্দেশিত আচরণবিধি অনুযায়ী অবশ্যই সহিষ্ণুতার পরিচয় দিতে হবে ৷ মনে রাখতে হবে মহানুভবতার মধ্যে কল্যাণ নিহিত রয়েছে, আর অসহিষ্ণুতার মধ্যে রয়েছে সমূহ বিপর্যয় ৷

স্বামীকে হতে হবে প্রেমিক ৷ প্রেমের মাধ্যমে, ভালোবাসার মাধ্যমে স্ত্রীর সাথে নীবিড় সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে ৷ প্রত্যেক স্ত্রীই চায় তার স্বামী তাকে একান্তভাবে ভালোবাসুক ৷ কিন্তু ভালোবাসার জন্যে স্ত্রীরা সাধারণত মুখ খোলে না ৷ সেজন্যে স্বামীর ওপর একটা গুরু দায়িত্ব অর্পিত হয় স্ত্রীকে আবিস্কার করার ৷ প্রতিটি মানুষেরই ব্যক্তিগত ভালো লাগা, মন্দ লাগার ব্যাপার থাকে ৷ স্ত্রীর প্রিয় বিষয়গুলোকে অর্থাৎ সে কী পছন্দ করে, কী অপছন্দ করে-সে বিষয়গুলো মনোযোগের সাথে লক্ষ্য করতে হবে ৷ তার চাওয়া-পাওয়ার ব্যাপারগুলোর প্রতিও একইভাবে লক্ষ্য রাখতে হবে ৷ এগুলো আবিষ্কার করার পর ন্যায় সঙ্গত চাওয়া-পাওয়া ও অধিকারগুলো পূরণের ব্যাপারে আন্তরিক হতে হবে ৷ স্বামী তার আচার-আচরণ, ভাবভঙ্গী দিয়ে স্ত্রীকে যদি বোঝাতে পারে তাহলে স্বামীর প্রতি স্ত্রীও আকৃষ্ট হবে এবং সেও তার ভালোবাসা উজাড় করে দেবে ৷ আর স্বামীকে যদি তার স্ত্রী ভালোবাসে তাহলে তার সংসার গোছাতেও আন্তরিক হবে ৷ নারী জাতি স্বভাবতই স্নেহ, আদর, ভালোবাসা প্রত্যাশা করে৷ যতোই সে স্নেহ আর আদর পায়, ততোই সে সুন্দর হয়ে ওঠে ৷ নারী এমন এক আবেগপ্রবণ চরিত্র যে, স্নেহ আর আদর পাওয়ার জন্যে এবং সবার প্রিয়পাত্র হয়ে ওঠার জন্য সে অনেক কিছু ত্যাগ করতেও দ্বিধা করে না ৷ ছোট বেলা থেকে যে মেয়েটি বাবা-মায়ের আদর-স্নেহ পেয়ে বড়ো হলো, সে মেয়েটি যখন বিয়ে করে স্বামীর কাছে আসে তখন স্বাভাবিকভাবেই সে চায় স্নেহ ভালোবাসার সকল আকাঙ্ক্ষা তার কাছ থেকেই পূরণ করতে ৷ বাবা-মা, ভাই-বোন, বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজনের কাছ থেকে এতোদিন যতো ভালোবাসা পেয়েছিল সে, স্ত্রী হয়ে স্বামীর কাছে যাবার পর স্বামীর কাছ থেকেই তা পেতে চায় ৷ ফলে কতোবেশী পরিমাণ ভালোবাসা একজন স্ত্রী তার স্বামীর কাছে প্রত্যাশা করে তা একবার ভেবে দেখুন ৷ আর স্ত্রীর তা প্রাপ্য, কারণ স্ত্রী তার নিকটজনদের ছেড়ে একমাত্র স্বামীর কাছে চূড়ান্ত আস্থা নিয়ে এসেছে ৷ তার এই ত্যাগকে শ্রদ্ধার দৃষ্টিতে দেখা খুবই জরুরী ৷ নবী করিম (সাঃ)বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি স্ত্রীকে বলে আমি তোমাকে সত্যিই ভালোবাসিএই কথাটা তার স্ত্রীর মন থেকে কখনোই মুছে যায় না ৷ এই হাদীস থেকে বোঝা যায় যে, স্ত্রীকে মনে মনে ভালোবাসলে চলবে না, ভালোবাসার কথা মুখেও প্রকাশ করতে হবে এবং ভালোবাসা হতে হবে আন্তরিক ও অকৃত্রিম ৷ স্ত্রীর কাছ থেকে দূরে অবস্থান করলে নিয়মিত খোঁজ-খবর নেয়া উচিত ৷ কাজের ফাঁকে অফিস থেকে ফোন করে কথা বললে স্ত্রীর নিঃসঙ্গতা কাটে ৷ বিদেশ-বিভূঁয়ে বাস করলে চিঠিপত্র লেখা যেতে পারে ৷ ফোন করে অভাব-অনুভূতির কথা প্রকাশ করলে দূরত্ব সত্ত্বেও আন্তরিকতা বৃদ্ধি পায় ৷ যেখানেই আপনি বেড়াতে যান না কেন, বৌ-এর জন্য ছোট-খাটো করে হলেও উপহার সামগ্রী কিনে এনে তার হাতে দিলে স্ত্রী বুঝবে যে, স্বামী তাকে ভুলেনি ৷ সামান্য উপহার সামগ্রী ভালোবাসার অকৃত্রিম নিদর্শন হয়ে উঠবে ৷ বিনিময়ে স্ত্রীর অমূল্য ভালোবাসায় ধন্য হবে স্বামীর জীবন, পুষ্পিত হয়ে উঠবে সংসার তথা দাম্পত্য জীবন ৷

পরিবারের সুখ-শান্তি নিশ্চিত করার প্রধান উপায় হলো স্ত্রীর সাথে সুসম্পর্ক বা দৃঢ় বন্ধন গড়ে তোলা। কিন্তু বহু ক্ষেত্রেই দেখা যায়, এই বন্ধন ঠিক গড়ে উঠছে না। এর কিছু কারণ আমরা গত কয়েকটি পর্বে তুলে ধরেছি। এবারের পর্বে আরো কিছু বিষয় নিয়ে আলোচন করব।
ছেলেটা শেষ পর্যন্ত গোল্লায় গেল। পড়ালেখা কিছুই হচ্ছে না। খালি খেলাখুলা খা—-লি খেলাধুলা। হবে কোত্থেকে! যা একখানা স্কুল, তার আবার মাষ্টার। ছাগলকে ঘাষ খাওয়ায় আর ছেলেদের নামতা শেখায়। ছাগলগুলোও যা, যখনি দেখি খালি পেট, যেন এই দেশে ঘাস-টাস নেই। ঘাস থাকবেই বা কোত্থেকে। এখনকি আর অত খালি জায়গা আছে যে ঘাস জন্মাবে। যেখানে-সেখানে বাড়ি-ঘর উঠছে আর উঠছে। না উঠেই বা কি হবে! যেভাবে জন্ম নিচ্ছে পোলাপান! আজব এক দেশ! জায়গার চেয়ে মানুষ বেশী, এতবেশী সুনামী হইলো কিন্তু কোন কমতি নেই।”
এভাবে অভিযোগের নামতা পড়তে পড়তে লোকটি বাসায় এসে বৌকে বলতে শুরু করলো, “তোমার পোলাপানের কী খবর! খবর টবর কিছু রাখো! রাখবে কোত্থেকে, তোমার কি আর সংসারের চিন্তা আছে! যেন সংসারটাতো আমার একার! তোমারতো খালি বাপের বাড়ীর চিন্তা…..”
পৃথিবীতে এমন মানুষ সত্যিই বিরল যে তার নিজের অবস্থা নিয়ে পরিপূর্ণ সুখী। তারপরও কেউ কেউ নিজের দুঃখ-কষ্ট নিয়ে সুখেই আছে, কারণ এর কষ্টের কথা মনের গভীরে গোপন করে রাখার চেষ্টা করেপক্ষান্তরে কিছু কিছু লোক আছে, যারা এতো দুর্বলচিত্ত যে দুঃখ-কষ্ট বা সমস্যার কথা গোপন রাখতে পারে না। কাউকে পেলেই অভিযোগের সুরে বলতে শুরু করে দেয়। এ ধরণের লোকেরা পৃথিবীর সকল ব্যাপারেই অভিযোগ করতে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে। এদের অভিযোগ থেকে কেউই আর বাদ পড়ে না। বন্ধু-বান্ধব কাউকে পেলেই শুরু হয়ে যায় অভিযোগ চর্চা। এ পর্বের শুরুতেই আপনারা যে ঘটনাটি জেনেছেন, তা-ই এর প্রমাণ। এরা ধীরে ধীরে বন্ধু-বান্ধবহীন হয়ে পড়ে। কিন্তু পরিবার-পরিজন ও সন্তানরা এই অভিযোগকারীর কথা চোখ-কান বুঁজে শুনে যেতে বাধ্য হয়। তাদের আর কিছুই করার উপায় থাকে না। ভেতরে ভেতরে তাই অসহ্য ও বিরক্ত হয়ে পড়ে। বিপজ্জনক বিষয়টি হলো পরিবারের খুঁটিনাটি ব্যাপারেও এরা অভিযোগপ্রবণ হয়ে ওঠে। পরিবারের সবাই তাই অভিযোগ আতঙ্কে ভুগতে থাকে।
অভিযোগের ব্যাপারটি একচেটিয়া যদি হয়, তাহলে হয়তো সমস্যা হয় না। কিন্তু যখনি অপর পক্ষ থেকে প্রতিবাদ আসে তখনি দেখা দেয় বিপর্যয়। এই বিপর্যয় পরিবারেরও বিপর্যয় ডেকে আনে। অথচ ইসলাম অভিযোগ করা থেকে বিরত থাকাকে উত্তম আচরণ বলে মনে করে। কেউ কোন বিপদে পড়লে অন্যের কাছে অভিযোগ না করে আল্লাহর দরবারেই সকল সমস্যা সমাধানের জন্যে প্রার্থনা করা উচিত। কারণ আল্লাহই সকল কিছু সমাধানের মালিক।
মনে রাখবেন, আপনার স্ত্রী বাইরের বিভিন্ন ঝামেলা বা অভিযোগের কথা শুনতে চায় না আপনার কাছ থেকে, সে অন্য কিছু আশা করে। আপনি তার ইচ্ছা-আকাঙ্খাগুলোর প্রতি শ্রদ্ধা দেখিয়ে এইসব বাজে প্রবণতা ত্যাগ করার চেষ্টা করুন । বাড়ি ফিরে বাইরের দুনিয়ার সব সমস্যার কথা ভুলে যান। পরিবারের সাথে সুখে-শান্তিতে সময়টা পার করার চেষ্টা করুন । হাসি-আনন্দে ভরে তুলুন সময়টাকে। পরস্পরের সান্নিধ্য উপভোগ করার চেষ্টা করুন। একসাথে খেতে বসুন, হাস্যালাপ করুন। আপনার স্ত্রীর রান্নাবান্নার প্রশংসা করুন। ছেলেমেয়েদের সময় দিন। তবেই গড়ে উঠবে সোনালী নীড়।
কিছু কিছু মানুষ আছে খিটখিটে মেজাজের। তারা খালি দোষ খুঁজে বেড়ায়। আর কিছু একটা পেলেই ঝগড়া বাঁধিয়ে দেয়। কথায় কথায় ঝগড়া করাটাই তাদের কু-অভ্যাস। তারা তুচ্ছ কোন ব্যাপার নিয়েও এতো বাড়াবাড়ি করে যে, সংসারে সবসময় ঝগড়া বেঁধেই থাকে। কোন স্ত্রীই এ ধরনের খুঁতখুঁতে স্বভাবের স্বামীকে পছন্দ করে না। তাই বহু পরিবার ভেঙ্গে যায়। যেমন ধরুন বাসাবাড়ি সাধারণত স্ত্রীরাই পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করে রাখে। কিন্তু অনেক সময় কাজের চাপে একটু আধটু দেরী হতেই পারে। অথচ দায়িত্বটা স্ত্রীর একার নয়। স্বামীরও বটে। কিন্তু স্বামী যদি সেই চিন্তা না করে গজ্ গজ্ করে বলতে থাকেন-টেবিলটা দেখি নোংরা হয়ে আছে, কেন? এ ঘরে কি কেউ নাই? আহ্ ! কতবার বলেছি এ্যাশট্রেটা কখনো ফ্লোরে রাখবে না, কে শোনে কার কথা?-(সজোরে )কী হলো, রান্নাবান্না হয়নি নাকি; ইত্যাদি।
একথা সত্য যে, সংসারে কাজকর্ম করতে গিয়ে ছোট-খাটো ভুল-ভ্রান্তি থেকে যেতেই পারে। সেই ভুল যে কেবল স্ত্রীরই হয়, তা নয় বরং স্বামীও ভুল করতে পারেন। এখন ভুল হলে সেজন্যে পরস্পরকে তিরস্কৃত না করে বরং আলাপ-আলোচনা ও সহমর্মিতার মাধ্যমে ভুল সংশোধন করতে হবে। আলোচনার সৌহার্দ্যপূর্ণ পথ পরিহার করে স্ত্রীকে একচেটিয়া দোষারোপ করতে থাকলে স্ত্রী অবশ্যই স্বামীর ব্যাপারে উদাসীন হয়ে পড়বে। যার পরিণাম না তাদের কারো জন্যে পুরো মঙ্গলজনক হবে, না তাদের সন্তান-সন্ততির জন্যে। পুরো পরিবার সংগঠনটিই বরং ভেঙ্গে যাবে। এ ধরণের পরিস্থিতি এড়াতে (সাঃ) রাসূলের দিক নির্দেশনার প্রতি মনোযোগী হওয়াটাই একমাত্র উপায়। মহানবী (সাঃ) বলেছেন, “তোমরা যারা শুনে শুনেই ঈমান এনেছো, কিন্তু আন্তরিক বিশ্বাসে যাদের হৃদয় এখনো পূর্ণ হয়নি, তাদেরকে বলি কোন মুসলমান সম্পর্কে নিন্দা করো না। কারণ যে বা যারা অপরের দোষত্রুটি বা খুঁত ধরে বেড়ায়, আল্লাহ তাদেরকে সমালোচনা করেন। আর এই রকম কোন ব্যক্তি সে যদি নিজের বাড়ীতেও থেকে থাকে, তবুও অসম্মানী হবে।”
একটা ব্যাপার স্বামীদের অন্তরে সাধারণত কমই জাগে, আর তা হলো পুরুষের মতো নারীর মনও পরিবর্তিত আবেগের শিকার। যেমন সুখানুভূতিতে আচ্ছন্ন হয়, তেমনি ক্রোধ এবং দুঃখেও ভারাক্রান্ত হয়। একঘেঁয়ে ঘরকন্যার কাজ, সন্তানদের কোন আচরণ কিংবা অন্যের কোন কথায়ও আপনার স্ত্রী রেগে থাকতে পারেন। এরকম বিপর্যস্ত মন নিয়ে তুচ্ছ কোন বিষয়েও অন্যদের সাথে তিনি রূঢ় আচরণ করে ফেলতে পারেন। এমন অবস্থায় তার রাগ ভাঙ্গানো স্বামীরই দায়িত্ব। কিন্তু কীভাবে! না, আপনি মোটেই স্ত্রীর রাগ ভাঙ্গাতে গিয়ে প্রভাব খাটিয়ে তার রাগের আগুনকে দ্বিগুন করে তুলবেন না। বাসায় ফিরে স্ত্রীকে রাগান্বিত দেখলে আপনি স্বাভাবিক থাকার চেষ্টা করুন, হাসি-খুশি থাকুন, কঠোরতা পরিহার করে হাসিমুখে কথা বলুন। টুকিটাকি কাজে তাকে সহযোগিতা করুন। কোনভাবেই আপনি জানতে চাইবেন না যে, কী ব্যাপার বলো তো!বরং আপনার স্ত্রী যদি নিজ থেকে কথা বলতে চায়, গভীর মনোযোগের সাথে তার কথা শোনার চেষ্টা করুন এবং তার সমস্যা সমাধানে আন্তরিক ও সহানুভূতিশীল হবার চেষ্টা করুন। ক্ষোভের কারণ দূর করার কাজে সহযোগিতা করুন, তাকে সান্ত্বনা দিন। আপনার সাহায্যই তার কাছে সবচেয়ে বেশী মূল্যবান বলে প্রতীয়মান হবে। এর ব্যতিক্রম কোন আচরণ করলে আপনাদের মধ্যকার মানসিক সংঘাত তীব্রতর হবে। নবী-রাসূলদের কথা বাদ দিয়ে বলা যায়, দুনিয়ার কোন মানুষই ভুল-ত্রুটির উর্ধ্বে নয়। কিংবা কেউই সম্পূর্ণ নিখুঁত বা সর্বগুণ সম্পন্ন নয়। তারপরও বিয়ের আগে প্রতিটি স্বামী মনে মনে কল্পনা করে যে, তার স্ত্রীটি হবে সর্বগুণে গুণান্বিতা একটি আদর্শ নারী। কিন্তু বাস্তবেতো তা সম্ভব নয়। সেজন্যে বিয়ের পর কল্পনার স্ত্রীর সাথে বাস্তবের স্ত্রীকে মিলিয়ে দেখলে বহু অপূর্ণতা চোখে পড়ে। স্বামীটি তখন ভাবতে থাকে, কী চেয়েছিলাম, আর কী পেলাম! এধরণের হতাশা ব্যক্ত করে পরিপূর্ণতার খোঁজে বাইরের দিকে দৃষ্টি দেয় । স্ত্রী তাকে ফেরাতে চাইলে স্ত্রীকে মারধর করে, অপমান করে, গালাগালি করে। গত ১৮ই জানুয়ারী তারিখের বাংলাদেশের পত্রিকাগুলোর প্রতি যাদের দৃষ্টি পড়েছে, তারা নিশ্চয়ই আজম রেজার ফাঁসীর খবরটি পড়তে ভোলেন নি। আজম রেজা ছিলেন একজন ব্যাংক কর্মকর্তা। বিয়ে করেছেন, জয়ন্তী নামের এক সুন্দরী শিক্ষিকাকে। কিছুদিন চমৎকার দাম্পত্য জীবন কাটানোর পর আজম রেজা আরেক সুন্দরী অভিনেত্রীর সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে। কোন স্ত্রীরপক্ষেই এ ধরনের সম্পর্ক মেনে নেয়া সম্ভব নয়। জয়ন্তীও মেনে নেয়নি। ফলে আজম রেজা নির্মমভাবে স্ত্রীকে হত্যা করে। আদালত খুনের দায়ে আজম রেজাকেও ফাঁসীর আদেশ দেয়। এই যে দীর্ঘদিন পর স্বামীর পরকীয়া প্রেমে পড়া, তা নিশ্চয়ই হঠাৎ করে হয়ে ওঠেনি। একটু একটু করে দিনের পর দিন এরকম সম্পর্ক গড়ে ওঠে সাধারণত। কিন্তু কেন? নিশ্চয়ই স্ত্রীর ব্যাপারে স্বামীর প্রত্যাশা অনুযায়ী প্রাপ্তিযোগ ঘটেনি, কিংবা এমন কোন ব্যাপার, যা স্বামী তার স্ত্রীকে ভালোবেসে বুঝিয়ে নিতে পারতো। আর যদি স্বামীই অবৈধ কামনা চরিতার্থতার জন্যেই অসৎ সঙ্গে পড়ে গিয়ে থাকে, তাহলে স্ত্রী নিশ্চয়ই তা আগেই টের পেয়েছে। সেক্ষেত্রে বুদ্ধিমত্তার সাথে স্বামীকে বহির্মুখিতা থেকে ফেরানো স্ত্রীর পক্ষে অসম্ভব ছিল না। তারপরও একান্তই যদি তা সম্ভব না-ই হতো, তাহলে সর্বশেষ পথ পারিবারিক আদালতে যাওয়া যেত। এসব ক্ষেত্রে নবীজীর শিক্ষা ছিল পরস্পরকে ক্ষমা করার ব্যাপারে উদার হওয়া। আজম রেজা আর জয়ন্তীর ক্ষেত্রে যেহেতু তা হয়নি, সেহেতু দুঃখজনক পরিণতি দুজনকে ভোগ করতে হলো। আর পরিবারটি ভেঙ্গে হয়ে গেল খান খান।

অন্যের ভুল-ভ্রান্তিকে উপেক্ষা করা ও ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখা মানুষের একটা বিশেষ গুন যা জন্তুদের নেই। কেউ যদি অন্যের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তাহলে তাকে ক্ষমা করে দেয়াই হলো মহত্বের লক্ষণ। ক্ষমার আনন্দানুভূতি উপভোগ করার মধ্যে যে আত্মিক প্রশান্তি থাকে, তা এক কথায় অলৌকিক। কিন্তু তারপরও মানুষ হিংসুক হয়, পরশ্রীকাতর হয়, প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়। এই পাশবিক গুনটি যেন আমাদের ভেতরে বাসা না বাঁধে, সে ব্যাপারে আন্তরিক হওয়া উচিত। হিংসা এবং পরশ্রীকাতরতা থেকে মানুষ নিন্দুক হয়ে ওঠে। গীবত চর্চা করে তারা অন্যের ক্ষতি করতে উদ্যত হয়। কোন পরিবারে যদি স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মধুর সম্পর্ক থাকে, নিন্দুকেরা তাদের মাঝে সম্পর্কের অবনতি ঘটাতে তৎপর হয়ে ওঠে। এসব ক্ষেত্রে নিন্দুকেরা এমনসব গুজব ছড়ায়, যা থেকে রেহাই পেতে হলে প্রয়োজন ঠাণ্ডা মাথায় সংবেদনশীল মন নিয়ে স্বামী-স্ত্রী পরস্পরের মাঝে বিষয়টি আলোচনা করা। জিজ্ঞাসাবাদ নয় বরং সত্য আবিস্কারের ব্যাপারে উভয়কে আন্তরিক হওয়া উচিত। কোন রকম রূঢ় মনোভঙ্গী এ ক্ষেত্রে বিরাট বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে।
আমি আমার স্বামী, শ্বাশুড়ী ও ননদসহ একত্রে থাকি। প্রথম প্রথম স্বামীর সাথে ভালোই কেটেছে আমার। একটা মধুর দাম্পত্য জীবন আমরা কাটাচ্ছিলাম। কিন্তু আমাদের এই সুখ কারো কারো অসুখের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। সেজন্যে আমার স্বামীর কাছে আমাকে অপ্রিয় করে তোলার জন্য আমার সম্পর্কে নানারকম গুজব স্বামীর কানে দেয়া হয়। সেসব গুজব এমন লোকদের কাছ থেকে শোনানো হয় যে স্বামীর পক্ষে তা অবিশ্বাস করাটা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়।
প্রশ্নকারী জানতে চাইলো-কী ধরণের গুজব একটু বলবেন? ভদ্র মহিলা বললেন, আমার শ্বাশুড়ী চব্বিশটা ঘন্টাই আমার খুঁত ধরতে ওঁৎ পেতে থাকে। নানা ছলছুতায় আমার সাথে ঝগড়া বাঁধিয়ে দিতে চায়। স্বভাবে এমনিতেই তিনি ভীষণ বদমেজাজী। আমার সাথে ঝগড়া করতে না পারলে আমার ব্যাপারে উল্টো-পাল্টা কথা বলে স্বামীর সাথে আমার ঝগড়া বাঁধিয়ে দিতে চেষ্টা করে। সেদিন আমি কেনাকাটা করে বাসায় ফিরছিলাম। রাস্তায় ভীষণ জ্যাম ছিল। বাসায় ফেরার পর শ্বাশুড়ী আমাকে জেরা শুরু করে দিলেন। কেন দেরী হলো, কোথায় গেছো, কার সাথে পিরিতি করে বেড়াও? ইত্যাদি সব বাজে কথা।
আমাদের সমাজে এমন কিছু ঘটনা ঘটে, যা মানবতাকে স্তব্ধ করে দেয়। ধরা যাক এরকম একটি চিত্র: দেখা গেল-একটা ঘরে হঠাৎ আগুন, সাথে চীৎকার চেঁচামেচি। পাড়া-প্রতিবেশীরা ঐ চীৎকার শুনে এগিয়ে এলো। যেই রুমের ভেতরে আগুন, সেরুমের দরজা খুলে ভেতরে দেখলো ঐ বাসার সুন্দরী বধূটির গায়ে আগুন জ্বলছে। তাড়াহুড়া করে আগুন নিভিয়ে বধূটিকে নিয়ে গেল মেডিকেলে। সৌভাগ্যবশত: বধূটি প্রাণে বেঁচে গেল। সুস্থ হবার পর গৃহবধূটিকে বাসায় যেতে বললে সে বললো, বাসায় যাবো না। প্রশ্ন করা হলো কেন যাবেন না? ভদ্র মহিলা বললো, বাসায় যাতে থাকতে না হয় সেজন্যেই তো মরতে চেয়েছিলাম। জিজ্ঞেস করা হলো কেন থাকতে চান না ঐ বাসায়? জবাবে বধূটি বললো, সে অনেক কথা। প্রশ্নকারী আবার বললো, বলুন! আমরা শুনবো। তারপর ভদ্রমহিলা বলতে শুরু করলেন। অবশেষে আমার স্বামী যখন বাসায় ফিরলেন, শ্বাশুড়ী কান্নাকাটি করে তার ছেলেকে সব ঘটনা বাড়িয়ে বাড়িয়ে বলার পর বললো, কোন মাংস বিক্রেতার সাথে নাকি আমার বাজে সম্পর্ক আছে। একথা শুনে আমার স্বামী স্বাভাবিকভাবেই রেগে গেলেন। আমিও রাগে-দুঃখে ভেঙ্গে পড়লাম। আমি নিজেকে শেষ করে দেয়ার চেষ্টা করলাম। এই বলে বধূটি কান্নায় ভেঙ্গে পড়লো।
যে ঘটনাটি এতোক্ষণ আমরা শুনলাম, এধরনের ঘটনা কারোরই কাম্য নয়। এধরনের ঘটনা ঘটতে থাকলে পারিবারিক কাঠামো সম্পূর্ণ ভেঙ্গে পড়বে। পরিবারের ভাঙ্গন রোধ করার জন্য তাই সবাইকে নিজ নিজ দায়িত্বের ব্যাপারে সচেতন হতে হবে এবং ভারসাম্যপূর্ণ আচরণ করতে হবে। এই ঘটনাটিতে একদিকে রয়েছে মা-বোন, অন্যদিকে স্ত্রী। উভয়ের প্রতিই স্বামী পুরুষটির দায়িত্ব রয়েছে। দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে স্বামী পুরুষটিকে অত্যন্ত বিচক্ষণতার সাথে অগ্রসর হতে হবে। কোন রকম বোকামীর পরিচয় দিলেই সমূহ বিপদের আশঙ্কা দেখা দেবে। যে ঘটনাটি আমরা একটু আগে জানলাম, এধরনের ঘটনা অনেক পরিবারেই অহরহ ঘটছে। এর যে কী সমাধান তা অনেকেই ভেবে কুল পান না। অথচ ইসলাম এসব ব্যাপারে চমৎকার সমাধান দিয়েছে। এবারে সে সম্পর্কেই আলোচনা করা যাক।
প্রতিটি ছেলেই বিয়ের আগে বাবা মায়ের আশ্রয়ে বড় হয়ে ওঠে। ছোট বেলা থেকেই সন্তানেরা বাবা-মায়ের ওপর নির্ভরশীল থাকে। বাবা-মা যেহেতু ছেলেকে লালন-পালন করে বড়ো করে তোলেন, সেহেতু তারা স্বাভাবিকভাবেই আশা করেন যে, বড়ো হয়ে ছেলে তাদের দেখাশোনা করবে। কিন্তু বিয়ে করার পর বাবা-মা যখন দেখেন যে, ছেলে তার নতুন সংসার তথা স্ত্রীর প্রতিই বেশী যত্নশীল হয়ে পড়ছে, তখন বাবা-মা কষ্ট পান। ছেলেকে বিয়ে দিয়ে তারা আপাতত দৃষ্টিতে স্বাধীন করে দিলেও মনে মনে ঠিকই প্রত্যাশা করেন যে, ছেলে তাদের ইচ্ছা-অনিচ্ছার প্রতি সম্মান দেখাবে। কিন্তু বাস্তবে তা না দেখতে পেয়ে ভাবেন পুত্রবধূটিই এই পরিস্থিতির কারণ। সেজন্যেই তারা পুত্রবধূর ওপর থেকে ছেলের মনোযোগ কমাতে নববধূটির পেছনে লেগে পড়েন। আর বাবা-মায়ের এই দুঃখজনক আচরণ ছেলের নতুন জীবনের জন্যে মোটেই কল্যাণকর নয়। তাই ছেলেকে অত্যন্ত বিচক্ষণতার সাথে যার যার অধিকার বুঝিয়ে দেয়াই হবে যুক্তিযুক্ত। বাবা-মা ছেলের কাছ থেকে প্রত্যাশা করে যে, ছেলে উপার্জনক্ষম হলে তাদের প্রতি ছেলে লক্ষ্য রাখবে। বাবা-মায়ের এই প্রত্যাশা তাদের অনিবার্য অধিকার। এই অধিকার বিয়ের পরও যথাযথভাবেই অটুট থাকে। ফলে স্ত্রীর প্রতি মনোযোগী হবার পাশাপাশি বাবা-মায়ের প্রতি আন্তরিক দায়িত্ব পালনেও সক্রিয় হতে হবে। বাবা-মায়ের আর্থিক সংকট মেটানো উপার্জনক্ষম সন্তানের অন্যতম কর্তব্য। তাই আগের মতোই বাবা-মায়ের প্রতি লক্ষ্য রাখা এবং তাদের সাথে ভালো ব্যবহার করা ছেলের কর্তব্য। এই কর্তব্য যদি ছেলে পালন করে, তাহলে বাবা-মা ছেলের বৌ এবং সংসারের মঙ্গল কামনা করবে। সে ক্ষেত্রে ছেলের বৌ-এর পেছনে লাগার কোন কারণ আর ঘটবে না। কিন্তু তারপরও ব্যতিক্রমী কিছু ঘটনা ঘটে থাকে, সেসব ঘটনার ক্ষেত্রে ছেলেকে গভীরভাবে ভাবতে হবে-বাবা-মায়ের কথা কতোটা ন্যায্য। অন্যায় বা অধর্মীয় কোন আদেশ মানতে ছেলে বাধ্য নয়-একথা বাবা-মা এবং ছেলে সবারই জানা থাকা উচিত। বাবা-মায়ের প্রতি অবহেলা প্রদর্শনের কারণেই যদি তারা বৌকে অন্তরায় ভেবে থাকেন, সেক্ষেত্রে, ছেলের উচিত হবে-বাবা-মায়ের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে চলা। বাবা-মাকে তার ঘরে ডেকে আনা, বাচ্চাদের বলা তারা যেন দাদা-দাদীকে সম্মান করে চলে। স্ত্রীকেও বলতে হবে সে যদি শ্বশুর শ্বাশুড়ীকে সম্মান করে চলে, শ্বশুর-শ্বাশুড়ীও ছেলের বৌ-এর বিরুদ্ধে লেগে পড়ার পরিবর্তে বরং বৌকে নিয়ে গর্ববোধ করবে, পুত্র বধূকে তারা সকল ক্ষেত্রেই সহায়তা করবে।
এখানে যে কথাটি উল্লেখ করা দরকার তাহলো, বাবা-মাকে সম্পূর্ণ পরিত্যাগ করে স্বামী স্ত্রীমুখী হয়ে পড়ুক-স্ত্রীদের এ ধরনের চিন্তা একেবারেই অন্যায্য। এ ধরনের দাবী না ন্যায়সঙ্গত না বাস্তবসম্মত। বরং স্ত্রীরা কৌশলে বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর সাথে এমন আচরণ করতে পারে, যাতে তারা ভাবে যে বৌ তাদের সংসারের গুরুত্বপূর্ণ একজন সদস্য। তাতে উভয়কূল রক্ষা পাবে। মনে রাখতে হবে, বৃদ্ধ বাবা-মায়ের সেবা যত্নের মধ্যে সন্তানের কল্যাণ নিহিত রয়েছে। বাবা-মায়ের বাইরেও পাড়া-প্রতিবেশীদের মধ্যে অনেকে ঈর্ষুক থাকতে পারে। এখানে একটা কথা বলে রাখা ভালো, তাহলো বাবা-মা সাধারণত ছেলের অমঙ্গল কামনা করে না। তারা যদি ছেলের সংসারে ঝামেলা ঘটানোর কোন কারণও হয়, তা কেবল তাদের নিজেদের অধিকার আদায়ের জন্য। ছেলে যদি তাদের অধিকার ঠিকমতো আদয় করে, তাহলে বাবা-মা ছেলের কল্যাণকামী হয়ে ওঠে। কিন্তু পাড়া-প্রতিবেশীরা হিংসা করে যদি কোন গীবত চর্চা করে, তাহলে তা খুবই ভয়ঙ্কর। তাদের কথায় হুট করে কোন সিদ্ধান্ত নেয়া খুবই বোকামীপূর্ণ কাজ হবে। মনে রাখতে হবে বৌ আপনার জীবন সঙ্গী। সেও রক্ত-মাংশের মানুষ। পৃথিবীর কোন মানুষই ভুলের উর্ধ্বে নয়। বৌ-এর ব্যাপারে কেউ যদি আপনার কানে কথা লাগায়, তাহলে ধীরে-সুস্থে গভীর চিন্তা-ভাবনা করে ঠান্ডা মাথায় তা প্রতিহত করাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। কোনভাবেই বাইরের লোকের কুৎসা রটনাকে পাত্তা দেয়া যাবে না। বৌ-এর সাথে ভালোবাসাপূর্ণ আন্তরিকতা নিয়ে আলোচনা করার পর যদি মনে হয় যে, সত্যিই বৌ কোন অন্যায় করে ফেলেছে, তাহলে বৌ-এর ঐ অন্যায়কে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখাই হবে বড় মনের পরিচয়। যুক্তি দিয়ে বৌকে সুন্দর করে বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করুন-এর ফলে তাদের কী ক্ষতি হতে পারে, স্ত্রীকে হুট করেই কোন শাস্তি দেয়া একেবারেই ঠিক নয়। তাকে বুঝিয়ে বলার পর নিশ্চয় তার ভেতরে অনুশোচনাবোধ কাজ করবে। এর ফলে ভুলের পুনরাবৃত্তি আর নাও হতে পারে। অন্যদিকে আপনার স্ত্রী কৃতজ্ঞতায় আপনার প্রতি সব সময় সশ্রদ্ধ থাকবে। পরিণতিতে পারিবারিক শান্তি ও শৃঙ্খলা থাকবে অক্ষুন্ন। ক্রোধ খুবই মারাত্মক জিনিস। ক্রোধের আগুনে পুড়ে বহু সুন্দর সংসার ছারখার হয়ে গেছে। নষ্ট হয়ে যাবার পর ক্রুদ্ধরা কিন্তু অনুতপ্ত হয়। ফলে ক্রোধ নয়, ধৈর্য্যরে পরিচয় দিন। আল্লাহ ধৈর্য্য ধারনকারীদের সাথে রয়েছেন।

সোনালী নীড়ের গত পর্বে আমরা পুত্রবধূর ওপর ছেলের বাবা-মায়ের অসন্তোষজনিত জটিলতার ক্ষেত্রে স্বামীর কর্তব্য নিয়ে বথা বলেছি। এবারের পর্বে আমরা মেয়ের সংসারে ছেলের শ্বাশুড়ীর নাক গলানো সংক্রান্ত জটিলতায় স্বামীর করণীয় সম্পর্কে কথা বলার চেষ্টা করবো।
ইংরেজীতে একটি প্রবাদ আছে To Err Is Human অর্থাৎ মানুষ মাত্রই ভুল আছে। সত্যিই তাই, আল্লাহ নিজেই যাদেরকে পাপ থেকে মুক্ত রাখবার ঘোষণা দিয়েছেন, তাঁরা ব্যতীত অন্য কেউই ভুলের উর্ধ্বে নয়। ফলে বাপের বাড়ীতে স্বাধীনভাবে বেড়ে ওঠা যে মেয়েটি হঠৎ বধূ হয়ে অচেনা একটা পরিবেশে এলো, সে যে ছোট-খাটো ভুল-ত্রুটি করে বসতেই পারে, তাতে অবাক হবার কিছু নেই। নববধূটি সাধারণত: যে ভুলগুলো করে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে-(১) স্বামীর সাথে রূঢ় আচরণ করা। (২) স্বামীর ইচ্ছার বিরূদ্ধে কিছু করে বসা এবং (৩) বেখেয়ালীপনাবশত স্বামীর আর্থিক ক্ষতি ঘটাবার মতো কোন আচরণ করা ইত্যাদি।
কোন স্ত্রীই সাধারণত প্রথম প্রথম স্বামীর সাথে রূঢ় আচরণ করে না। অবশ্য দু একটি ঘটনা ব্যতিক্রম থাকতেই পারে। ধীরে ধীরে স্ত্রীদের অনেকেই রূঢ় আচরণ করতে প্রলুদ্ধ হয়এর কারণ অনেক সময় স্ত্রীদের মা অর্থাৎ ছেলের শ্বাশুড়ী। বিষয়টি একটু ব্যাখ্যা না করলে ভুল বোঝাবুঝির কারণ হতে পারে। আমরা বলছি না যে, ছেলেদের শ্বাশুড়ীরা সবাই একইরকম বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। তবে মেয়ের বিয়ে দেবার পরপর মেয়ের মা স্বাভাবিকভাবেই কামনা করে যে, তার জামাই হবে তারই মন মতো একটা আদর্শ ছেলে। কিন্তু সমস্যা হলো প্রতিটি মানুষই মূলত স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। ফলে আপন-আপন স্বাতন্ত্র্য বজায় রেখেই শ্রদ্ধা-সম্মানের ভিত্তিতে জামাই-শ্বাশুড়ী সম্পর্ক গড়ে তোলা প্রয়োজন। কিন্তু শ্বাশুড়ী যখন দেখে যে জামাইর চালচলন একটু অন্য রকম, তখন শ্বাশুড়ী জামাইকে নিজের আদর্শে গড়ে তোলার চেষ্টা চালায়। এ ধরণের চেষ্টা প্রথম দিকে মেয়ের কল্যাণেই মূলত হয়ে থাকে। কিন্তু পরক্ষণে জামাই যখন তার ব্যক্তিত্ব ও স্বাতন্ত্র্যে অটল থাকে, তখন শ্বাশুড়ী মেয়েকে হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করে জামাই সংশোধন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের চেষ্টা করে। এভাবে ছেলের শ্বাশুড়ী, মেয়ের সংসারে এবং জীবনে আস্তে আস্তে প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে। শ্বাশুড়ীর পরিকল্পনা ব্যর্থ হলে জামাতার ওপর মনে মনে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। আর এই ক্ষিপ্ততার প্রয়োগ ঘটানো হয় মেয়েকে দিয়ে। মেয়ে তাই ধীরে ধীরে তার স্বামীর সাথে একটু অন্যরকম আচরণ শুরু করে দেয়। স্বামী যে ধরনের আচরণ তার স্ত্রীর কাছ থেকে প্রত্যাশা করে, স্ত্রী সেরকম আচরণ না করে কেমন যেন বিগড়ে যেতে থাকে। এমনকি স্বামীর কোন কোন কর্মকান্ডের সমালোচনায় মুখরও হয়ে ওঠে। মেয়েকে রীতিমতো শ্বাশুড়ী বিভিন্ন রকম নির্দেশ দিতে শুরু করে, আর মেয়েও আগ-পর চিন্তা না করে মায়ের আদেশ-নির্দেশকে অনুসরণ করতে শুরু করে। এমনকি স্বামীকে তার আচার-আচরণ পরিবর্তন করার জন্য বলতে শুরু করে। মা-মেয়ের সম্পর্ক অত্যন্ত দৃঢ়। এই সম্পর্ক স্বভাবগত, প্রকৃতিগত । বছরের পর বছর ধরে যে মেয়ে তার মায়ের একান্ত আশ্রয়-প্রশ্রয়ে বড়ো হয়েছে, স্বামীর তুলনায় মা-ই মেয়ের কাছে বেশী আপন বলে মনে হওয়াটা স্বাভাবিক। সেজন্যে মায়ের আদেশ শিরোধার্য করে মেয়ে তার স্বামীর সাথে দুর্ব্যবহার করতেও দ্বিধা করে না। অন্যদিকে জামাই যখন শ্বাশুড়ীর মনোপুত: হয়ে উঠতে ব্যর্থ হয়, তখন শ্বাশুড়ী মেয়ের জামাতার ব্যাপারে কঠোর মনোভাব পোষণ করতে শুরু করে। ফলে দাম্পত্য জীবনে নেমে আসে মহা-অসন্তোষ, দ্বন্দ্ব-কলহ। যার পরিণতি হয় বিবাহ বিচ্ছেদ, অথবা চির অশান্তি। স্বামীর সাথে এভাবেই স্ত্রী রূঢ় আচরণ করতে শুরু করে। এখানে যে বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ তাহলো, শ্বাশুড়ীর সাথে জামাতার সম্পর্ক মানেই যে বৈরী সম্পর্ক এমনটি ভাবার কোন কারণ নেই। বরং সম্পর্কটা সাধারণত এর বিপরীত অর্থাৎ শ্বাশুড়ীর সাথে জামাইর সম্পর্ক খুবই আন্তরিক ও শ্রদ্ধা-স্নেহের। মেয়ের মঙ্গল কামনা থেকেই মূলত: শ্বাশুড়ীরা মেয়ের সংসারে প্রভাব বা হস্তক্ষেপের চেষ্টা করে। কিন্তু অজ্ঞতাবশত: অনেক সময় হিতে বিপরীত হয়ে দাঁড়ায়। সেজন্যে শ্বাশুড়ীদের ব্যাপারে পুরুষদের অতিরিক্ত সমালোচনার মনোভাব পরিহার করে চলাই শ্রেয়। তাছাড়া অনেক ক্ষেত্রে শ্বাশুড়ীরা খুবই ভালো প্রকৃতিরও হয়ে থাকেন। এক ভদ্রলোক বলেছেন, তাঁর ভাষায় “আমার শ্বাশুড়ী যেন সাক্ষাৎ দেবীতিনি যেমন দয়াবতী, তেমনি সবকিছু ভালোমত বুঝতেও পারেন। তাই আমি তাকে মায়ের মতোই ভালোবাসি। আমাদের সমস্যায় তিনি সবসময় আমাদের পাশে থাকেন। তার অস্তিত্ব যেন আমার পরিবারের সুখ-সমৃদ্ধির জন্য এক নিশ্চয়তা স্বরূপ।”
তাই বলা যায়, শ্বাশুড়ী মাত্রই খারাপ নয় এবং শ্বাশুড়ীই মেয়ের সংসারে জটিলতা সৃষ্টির একমাত্র কারণ নয়। আরো অনেক কারণেও সংসারে সমস্যা দেখা দিতে পারে। সেজন্যে শ্বাশুড়ীর সাথে বা শ্বশুর বাড়ীর সাথে সমস্যা এড়িয়ে চলার জন্য বুদ্ধিমানের কাজ হলো শ্বশুর পক্ষীয় আত্মীয়দের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে চলা। আসলে স্বামী-স্ত্রী উভয়েরই পরস্পরের বাবা-মা, ভাই-বোন আত্মীয়-স্বজনদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে চলা। এতে উভয়েরই কল্যাণ নিহিত রয়েছে। শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর সামনে কখনোই তাদের মেয়ের সমালোচনা করা উচিত নয়। বরং তাদের কন্যার প্রতি জামাতার ভীষণ ভালোবাসার দিকটিই ফুটিয়ে তোলা উচিত। মেয়ের বাবা-মাও কিন্তু অভিভাবক। ফলে নিজের বাবা-মায়ের মতো স্ত্রীর বাবা-মায়ের কাছেও অভিভাবকসুলভ পরামর্শ গ্রহণ করে সংসার জীবনে তা কাজে লাগানো যেতে পারে। স্বামী এবং স্ত্রী উভয়েরই উচিত আপন-আপন শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর সাথেই কেবল নয় বরং শ্বশুর বাড়ীর সবার সাথেই সহৃদয় আচরণ করা। এর ফলে দাম্পত্য জীবনে সুখ-শান্তি ও সাফল্য নেমে আসবে। নবী করীম (সাঃ) বলেছেন, “সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ বৈশিষ্ট্যসমূহ যা আমার উম্মতকে বেহেশতে প্রবেশ করাবে তা হচ্ছে আল্লাহর ভয় ও উত্তম আচরণ।” ইমাম আলী (আঃ) বলেছেন, সদাচরণ প্রচুর পরিমাণে জীবনোপকরণ দান করে এবং বন্ধুত্বের সম্পর্কের ঘনিষ্ঠতাকে বাড়িয়ে দেয়। তিনি আরো বলেছেন, বন্ধুত্ব গড়ে তোলা হলো জ্ঞানীর মতো কাজ। ফলে প্রতিটি মানুষের উচিত সর্বাবস্থায় উত্তম আচরণ করা।

সুখ-শান্তির মূল ভিত্তি হলো উত্তম আচরণ। তাই সদাচরণের অভ্যাস গড়ে তোলা শান্তিকামী প্রতিটি মানুষের কর্তব্য। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন সদাচরণের গুরুত্ব বোঝাতে গিয়ে রাসূল (সাঃ)কে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, আপনি যদি কঠোর ও নির্মম হতেন তাহলে তারা নিশ্চিতরূপে আপনার চারপাশ থেকে সরে যেত। অন্যত্র বলেছেন, রাসূল (সাঃ)এর মধ্যেই রয়েছে, সর্বোত্তম চরিত্রের আদর্শ। তাই জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে আমাদের উচিত হবে রাসূলের আদর্শকে অনুসরণ করা । পারিবারিক সুখ-শান্তি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রেও তার অনুসরণের কোন বিকল্প নেই।

(m~Î: †iwWI †Znivb|)

Share

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY