সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মহান নেতা

0
327

হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর পৃথিবীতে আবির্ভাবের পরে (৫৭০-৬৩২ খ্রীঃ) মানব জীবনে দেখা দেয় বৈপ্লবিক পরিবর্তন। আজ থেকে সোয়া চৌদ্দশত বছর আগে এই রবিউল আউয়াল মাসের ১২ তারিখে রাসূল (সাঃ) এর জন্ম হয়েছিল আরবের মক্কা নগরীতে। যে সমাজে তিনি জন্ম লাভ করেছিলেন সেই সমাজের মানুষ অত্যাচারে-অনাচারে লিপ্ত হয়ে আল্লাহর দেয়া বিধান ভুলে গিয়ে নিজেদের মনগড়া আইনে চলছিল। সামাজিক অনাচার, ব্যভিচার, মারামারি, কাটাকাটি, হানাহানি ইত্যাদি ছিল নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার। আল্লাহ পাকের বিশেষ অনুগ্রহে সবচেয়ে ভদ্র, নম্র ও চরিত্রবান ব্যক্তি হিসেবে তিনি গড়ে উঠেছিলেন এবং আরবদের সবাই তাকে আল-আমীন বলে ডাকতো। ৪০ বছর বয়সে তিনি নবুয়ত লাভ করেন এবং তার ২৩ বছরের নবুয়তী জীবনে নাযিল হয় মহাগ্রন্থ আল-কুরআন। সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা হলো। বিশ্ববাসীকে বাস্তব প্রমাণ উপস্থাপন করে হুজুর (সাঃ) বলে গেলেন তোমরা যতদিন আল্লাহর দেয়া জীবন বিধান আল কোরআন ও  আমার উপস্থাপিত জীবনাদর্শ আঁকড়ে ধরবে ততদিন পথভ্রষ্ট হবে না

 

হযরত রাসূল-ই-আকরাম (সাঃ) এ দুনিয়ার মানুষকে একই আল্লাহর অস্তিত্বে প্রত্যয়শীল করে তুলে তাদের মধ্যে ঐক্য ও সাম্য প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করেছিলেন। ভাষা, বর্ণ, রক্ত ভৌগোলিক অবস্থান প্রভৃতি কারণের ওপর কোন স্বজাতিকতার ভিত্তি স্থাপন করেননি। এর পরিবর্তে আল্লাহর অস্তিত্বের স্বীকৃতির ভিত্তির উপর তিনি একত্ববাদ  প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন। এজন্য অত্যন্ত দুঃখের সাথে শেখ আলতাফ হোসেন হালী বলেছেন যে, দ্বীন এসেছিল বিভিন্ন কওমের হৃদয়ে ঐক্য প্রতিষ্ঠার জন্য। এই দ্বীনের মধ্যে এখন ভাই থেকে ভাই পৃথক হয়ে যাচ্ছে। কারণ, এদের মধ্যে কোন আদর্শিক ঐক্য নেই। তারা নানা পার্থক্য সৃষ্টিকারী মতবাদে দীক্ষা গ্রহণ করেছে।মুসলিম জাতি যখনই ব্যক্তিগত পর্যায় হতে শুরু করে, পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনের সর্বত্র ঈমান ও নেক আমলের শর্তগুলো পূরণ করবে, জীবনের প্রতি পদক্ষেপে রাসূল (সাঃ) এর জীবনাদর্শ অনুসরণ করবে, আল্লাহ পাকের এবাদত বন্দেগী করবে, তার সাথে কোন কিছুকে অংশী স্থাপন করবেনা, জীবন চলার পথে আল্লাহর নেয়ামতসমূহের শোকর আদায় করবে, যখন ত্যাগী হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠা করবে, তখন পরম কৌশলী আল্লাহ পাক মুসলিম জাতিকে দুনিয়ার বুকে দান করবেন, ক্ষমতা, অধিকার, আধিপত্য, সম্পদ, প্রাচুর্য, সাফল্য, ভয়-ভীতিহীন নিরাপত্তা এবং ইসলামের সার্বিক প্রতিষ্ঠা। এর ফলে শুধু কেবল আখেরাতের জীবনেই নয়, বরং দুনিয়ার জীবনের সকল অঙ্গনে আল্লাহ পাকের প্রতিশ্রতি মোতাবেক তাদের উপর বর্ষিত হবে অজস্র রহমতের বারিধারা।
খ্রীষ্টান হয়েও হযরত ঈসা (আঃ)-কে শ্রেষ্ঠ বলতে অপারগ হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রখ্যাত সাংবাদিক ও গবেষক মাইকেল হার্ট তার বিশ্ববিখ্যাত
দি মোস্ট ইনফ্লুয়েন্সিয়াল পারসনস ইন হিস্টরী গ্রন্থে রাসূল (সাঃ) কে সর্বশ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব হিসেবে উল্লেখ করে লিখেছেন: “A Striking example of this is my ranking Muhammad higher than Jesus, in large part, because of my belief that Muhammad had a much greater personal influence on the formulation of the Muslim religion than Jesus had on the formulation of the Christianity” আমেরিকান সাংবাদিক প্রমাণ করলেন হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) আল্লাহর সর্বশেষ নবী এবং আল কুরআন এক বিশেষ ধর্মগ্রন্থ।  যে ধর্ম মানুষে মানুষে ঘৃণা বিদ্বেষ সৃষ্টি করে, সে ধর্ম, ধর্ম বলারই অধিকার রাখে না। ধর্মীয় নেতাদের কর্তব্য তারা যেন বিভিন্ন ধর্মের মধ্যে ঐক্য, ভ্রাতৃত্ব ও সৌহার্দ্র সৃষ্টি  করার লক্ষ্যে মিলেমিশে কাজ করেন।   সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও জাতীয় ঐক্য রক্ষার জন্য মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) বিদায় হজ্বের ভাষণে বলেন-হে লোকসকল, তোমরা শোন- কোন আরবের উপর অনারবের শ্রেষ্ঠত্ব নেই, আবার কোন অনারবের উপরও আরবের শ্রেষ্ঠত্ব নেই, কোন কালোর উপর সাদার এবং সাদার উপর কালোর শ্রেষ্ঠত্ব নেই। কেননা, সবাই আদম থেকে এবং আদম মাটি থেকে সৃষ্ট। শ্রেষ্ঠত্ব যাচাইয়ের মাপকাঠি হচ্ছে তাকওয়া । এপ্রসঙ্গে জর্জ বার্নাড শ বলেন—“If all the world was united under one leader Muhammad would have been the best fitted man to lead the peoples of various creeds, dogmas and ideas to peace and happiness” অর্থাৎ তিনি ইতিহাসে একমাত্র ব্যক্তি যিনি ধর্মীয় ও পার্থিব উভয়ক্ষেত্রেই সর্বোচ্চ সফলতা দেখাতে সক্ষম হয়েছেন। তার ব্যক্তিগত পারিবারিক, সামাজিক, রাজনৈতিক, নবুওতী তথা সামগ্রিক জীবনের পুংখানুপুংখভাবে বিবরণ অসংখ্য বিশ্বস্ত সূত্রের উদ্ধৃতিসহ লিপিবদ্ধ আছে।তৎকালীন আরবের গৌরব ও ধর্মীয় মূল্যবোধের প্রতীক ঐতিহ্যবাহী পবিত্র কাবার রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব ছিল কুরাইশ বংশের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তির উপর। ঐ বংশেরই সর্বজনমান্য নেতা আবদুল মুত্তালিবের পুত্র আবদুল্লাহর ঔরসে মা আমিনার গর্ভে জন্মগ্রহণ করেন মহানবী (সাঃ)। অসাধারণ দৈহিক সৌন্দর্য, সদাচার, সত্যবাদিতা, মধুর ভাষণ, ন্যায়পরায়ণতা অনন্য চরিত্র-মাধুর্য্য প্রভৃতি সদগুণাবলীর কারণে তিনি সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।মহান আল্লাহ তায়ালা ৮ রবিউল আউয়াল সোমবার হযরত জিব্রাইল (আঃ) এর মাধ্যমে হেরা পাহাড়ের গুহায় প্রথম ঐশী বার্তা পাঠান। ৪০ বছর বয়সে নবুওত প্রাপ্তির পর তার পরিচিতি জন্মভূমির ক্ষুদ্র গণ্ডির মধ্যে নয় সমগ্র আরব তথা সভ্য জগতের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। নিস্কলুষ চরিত্র মাধুর্য নিয়ে ইসলামী কালেমার বিপ্লবী দাওয়াত প্রচারের সময় পদে পদে তিনি প্রচণ্ড বিরোধীতার মোকাবেলা করেন এবং তেইশ বছরের নবুওতী জীবনে শতধা-বিভক্ত আরব জাতিকে এক ঐক্যবদ্ধ শক্তিশালী বিশ্বজয়ী জাতিতে পরিণত করলেন।প্রচলিত সমাজের ধর্ম, সভ্যতা, সংষ্কৃতি, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ব্যবস্থা, শিক্ষা, সামাজিক, নৈতিক তথা সামগ্রিক জীবন ব্যবস্থায় আমূল সংস্কার ও পরিবর্তন সাধন করে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এক নতুন জীবন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করেন। পৃথিবীর ইতিহাসে এটা সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য, স্থায়ী ও তাৎপর্যময় সফল বিপ্লব। ১২ই রবিউল আউয়াল সোমবার দুপুরের সময় ৬৩ বৎসর বয়সে শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) ইহলোক ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজেউন)।দুনিয়ার সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ, যিনি সর্বশেষ ও পূর্ণতম জীবন বিধান আল কোরআন নিয়ে আবির্ভূত হয়েছিলেন,  তিনি কেবল আনা বাশারুম মিসলুকুম বলে নিজেকে মানুষরূপে চিহ্নিত করে ক্ষান্ত হননি বরং উদাত্ত কণ্ঠে সারা দুনিয়ার সকল মানবমন্ডলীকে ইসলামের দিকে আহ্বান জানিয়ে সকল মানুষেল মুক্তি পথ নির্দেশ করেছেন। সকল মানুষকে এক-অদ্বিতীয় আল্লাহ্কে গ্রহণ করার কথা বলে আমাদের প্রিয় মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সারা দুনিয়ার মানুষকে একই কাতারে দাঁড় করিয়ে দিয়েছেন।  আজকের বিশ্বের দিকে তাকালে দেখতে পাই, ইরাক, ফিলিস্তিন, ইসরাঈল কাশ্মীর, আফগানিস্তান, বসনিয়া, পাকিস্তান, ভারত, যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য রাষ্ট্রগুলিতে কোথাও সম্প্রীতি ও শান্তি নেই। ভারতে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা, পশ্চিমা দেশে সাদা-কালো বিভেদ, হিন্দুদের শ্রেণী বা বংশমর্যাদার পার্থক্য সুপ্রাচীনকাল হতেই থেকে যাচ্ছে। নোবেল বিজয়ীগণ শান্তির জন্য পদক পেলেও কোথাও কিঞ্চিৎ শান্তি ফিরিয়ে আনতে পারেননি। যিনি পৃথিবীর মানুষের জন্য রহমত , বরকত ও শান্তির জন্য আবির্ভূত হয়েছেন তিনি সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)। মহান আল্লাহ যাকে রাহমাতুল্লিল আলামীন হিসাবে প্রেরণ করেছেন। আল্লাহ তায়ালা বলেন- রাসুলের জন্য রয়েছে মানবজাতির জন্য সুন্দরতম আদর্শ। প্রায় পাঁচ লক্ষ মুমিন সাধক দীর্ঘকাল পর্যন্ত  হাদীসের বর্ণনা, সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও গ্রন্থনার কাজে ব্যাপৃত থেকে জীবনীগ্রন্থ রচনার ক্ষেত্রে পৃথিবীতে এক অদ্বিতীয় ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন। আধুনিক যুগে ইসলামী শিক্ষা বিস্তারে গৌরবোজ্জ্বল অতীতকে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার জন্য প্রথিতযশা মুসলিম বুদ্ধিজীবীদের প্রয়াসী হতে হবে যাতে মানুষের মন ধর্মীয় চেতনায় সমৃদ্ধ হয়।  এ বিষয়ে বাংলাপিডিয়া বলছে- “The impact of the Prophet’s (saw) ideas on the European world is acknowledged by one and all. John William Draper who has unhesitatingly declared that “Renaissance owes its birth to Islam”, has stated in A History of the Intellectual Development of Europe: “Four years after the death of Justinian, in AD 569, was born at Makkah, in Arabia, the man (Muhammad) who, of all men, has exercised the greatest influence upon the human race.” ইসলাম যেহেতু একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান সেহেতু এই সত্যের আলোকেই এর অনুসারীদের জন্য রয়েছে ব্যক্তি জীবন, গোষ্ঠী জীবন তথা রাষ্ট্রীয় জীবনের দায়-দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনের সুষ্পষ্ট দিক নির্দেশনা ও উপযুক্ত নীতিমালা। ইহকালীন শান্তি ও পরকালীন মুক্তির জন্য ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায়  প্রতিবন্ধকতা অপসারণ  করে আদর্শ ইসলামী শিক্ষার চর্চা ও মূল্যবোধ প্রসারে আমাদের সবাইকে পবিত্র কোরআন ও হাদীসের মর্মবাণী অনুযায়ী জীবনকে পরিচালিত করতে  হবে।-লেখকঃ দেওয়ান রাশীদুল হাসান, ডাইরেক্টর, জনসংযোগ ও প্রকাশনা দফতর, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ । (তথ্য সূত্র: তাকরিব)

 

Share

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY